spot_img
Homeবিশেষ আয়োজনপ্রতিবেদনসীমিত পরিসরে ব্যাংকিং এবং সচেতন বাড়িওয়ালা"

সীমিত পরিসরে ব্যাংকিং এবং সচেতন বাড়িওয়ালা”

“সরকার ঘোষিত ছুটির সাথে সাথে বাড়িওয়ালা গেইটে তালা দিয়ে লকডাউন ঘোষণা করলেন।বিপত্তি ঘটল ব্যাংকার ভাড়াটিয়া নিয়ে। রোস্টার ডিউটির আওতায় ছুটির মধ্যে আজই তিনি প্রথম অফিস করলেন। বাসায় ঢূকতে গিয়ে পড়লেন বাড়িওয়ালার মুখে।

বাড়িওয়ালাঃ শুনেন ভাই, আপনি কোথা থেকে আসলেন?

ব্যাংকারঃ জরুরি ব্যাংকিং সেবা দিয়ে।

বাড়িওয়ালাঃ আপনি ছাড়াও তো আরও অনেকে আছে যারা এতদিন সেবা দিয়েছেন। আপনাকে আজ যেতে হলো কেন?

ব্যাংকারঃ রোস্টার ডিউটির আওতায় আমাকে মাত্র ২ দিন যেতে হবে।

বাড়িওয়ালাঃ ২ দিন যেতে হবে মানে। ১ দিনেই তো আপনার শাখায় ৪০০-৫০০ লোক আসছে, যেখানে মসজিদে ৫জনের বেশি যাওয়া নিষেধ।

ব্যাংকারঃ ব্যাংকিং তো জরুরি সেবার অন্তর্ভুক্ত।

বাড়িওয়ালাঃ আপনি জরুরি সেবার অন্তর্ভুক্ত এতে আমার কোনো আপত্তি নেই। আপনি কিন্তু এখন বাসায় ঢুকতে পারবেন না।

আপনি যা করতে পারেন-

১. আগামী ১৪দিন আপনার অফিসে থাকতে পারেন। অথবা

২. সাটিফিকেট নিয়ে আসেন আপনি করোনা আক্রান্ত হননি। অথবা

৩. আর এখন যদি বাসায় ঢুকতে চান তবে আগামী ১৪দিন আপনি বাসা হতে বের হতে পারবেন না। আপনার চাকরির মায়া থাকতে পারে, জীবনের মায়া নাও থাকতে পারে। আমার এখানে আরও ৪০টা পরিবার আছে। আমিতো তাদের জীবনের ঝুঁকি নিতে পারিনা। আপনি না থাকলে আগামী ১৪দিন আপনারা পরিবার আমাদের দায়িত্ব-এ থাকবে। আপনি এখন বাসায় ঢুকবেন নাকি বাহিরে থাকবেন সিদ্ধান্ত আপনার।

ব্যাংকার এখনও গেইটের বাইরে, কি করবেন! হিসাব মেলাতে পারছেন না। দয়া করে কেউ হিসাব টা মিলিয়ে দিন। (কাল্পনিক)

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments