spot_img
Homeজাতীয়ডাকাতের গুজবে আতঙ্কিত মুন্সীগঞ্জের লোকজন

ডাকাতের গুজবে আতঙ্কিত মুন্সীগঞ্জের লোকজন

আ স ম আবু তালেব, বিশেষ প্রতিনিধিঃ ডাকাতের গুজবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে গোটা মুন্সীগঞ্জের লোকজন। এলাকায় ডাকাত পড়েছে এমন ভয়ার্ত খবর বিভিন্ন মসজিদের মাইকে রাত ১১ টা থেকে ২ টা পযর্ন্ত অনবরত প্রচার হওয়ায় ত্বরিৎগতিতে ছড়িয়ে পড়েছে এলাকার সর্বত্র।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গুজব খবরের উৎপত্তি স্থল লৌহজং উপজেলার বৌলতলী গ্রাম। আবার কেউবা জানান, শ্রীনগর উপজেলার সিন্দুরদি গ্রামে এ ঘটনার সূত্রপাত হয়েছে। গ্রামে ডাকাত পড়েছে গুজব খবরটি পার্শ্ববর্তী সিরাজদিখান, শ্রীনগর ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলার প্রায় প্রতিটি মসজিদে মাইকিং করে জানানো হয়।

বিশেষ করে লৌহজং উপজেলার বৌলতলী, বানিয়াগাঁও, আটিগাঁও, কলা গ্রামে ও শ্রীনগর উপজেলার উত্তরগাঁও, ভাটপাড়া সিন্দুরদি এবং সিরাজদিখান উপজেলার জৈনসার, চালতিতলা, আদবাড়ি গ্রামে ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলার বেতকায় ডাকাতি হওয়ার গুজব মূহুর্তেই ছড়িয়ে পড়ে।

বৌলতলী গ্রামের একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, শ্রীনগর উপজেলার সিন্দুরদি গ্রাম দিয়ে ৪/৫ জন পুরুষ ও ৩ জন বোরকা পরহিতা মহিলা রাত আনুমানিক ১০.৩০ মিনিটে ১ জন মুমূর্ষ রোগীকে ধরাধরি করে বৌলতলী চৌরাস্তায় নিয়ে যায়। তিনি সর্বনাশা নভেল করোনা রোগী ভেবে তাদের নিকট না গিয়ে দূর থেকে পর্যবেক্ষণ করতে থাকেন।

কিছুক্ষণ পর চৌরাস্তা গেলে দেখতে পান একটি পিকআপ ভ্যান দাড়িয়ে আছে। তিনি পিকআপ ভ্যান চালককে কেন দাড়িয়ে আছেন জানতে চাইলে চালক জানান একজনের জন্য অপেক্ষা করছি। এরপর পিকআপ ভ্যান কারো জন্য অপেক্ষা না করে দ্রুতগতিতে চলে যায়।এতে জনমনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়।

এরপর স্থানীয় কয়েকজন যুবক মিলে হৈচৈ করায় কে বা কারা মসজিদের মাইক দিয়ে ডাকাত পড়েছে অনবরত প্রচার করতে থাকে। বৌলতলী গ্রামের তিনটি মসজিদের ঈমামকে জিঞ্জেস করলে তারা একজন অন্য জনের নাম বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

বৌলতলী ইউপি চেয়ারম্যান জনাব হাজী মোহাম্মদ আব্দুল মালেক শিকদারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি অবগত আছি। তবে কিভাবে যে গোটা মুন্সীগঞ্জে গুজব ছড়ালো তা আমার জানা নেই। শুনেছি পার্শ্ববর্তী এলাকা সিন্দুরদি থেকে বিলে ৪/৫ জন যুবক দেখে কেউ গুজব ছড়িয়েছে।

এ ব্যাপারে লৌহজং থানার ওসি জনাব মোহাম্মদ আলমগীর হোসাইন জানান, পাশের শ্রীনগর উপজেলার সিন্দুরদি গ্রামে অজ্ঞাত কতিপয় যুবক মাঝরাতে টর্চলাইট জ্বালিয়ে বিলে মাছ ধরতে যায়। তখন এলাকাবাসী তাদেরকে দেখামাত্রই ডাকাত ভেবে চিৎকার দেয়। এরই প্রেক্ষিতে স্থানীয় মসজিদে মাইকিং করে ডাকাত পড়ার গুজব ছড়ানো হয়।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments